ইসি গণতন্ত্রের সিরিয়াল কিলার: ডা. জাফরুল্লাহ

নির্বাচন কমিশন গণতন্ত্রের সিরিয়াল কিলার বলে মন্তব্য করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন পদ্ধতি বাতিলের দাবি পরিষদের এক মতবিনিময় সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, এই নির্বাচন কমিশন সিরিয়াল কিলার। এই সিরিয়াল কিলার নিরাপদে ঘুরে বেড়াবে এটা কী কখনো গ্রহণযোগ্য হতে পারে? সিরিয়াল কিলারের একটামাত্র অবস্থান, তাদেরকে ক্ষমতা থেকে বিদায় করে বিচারের আওতায় আনা। কেবল তাই নয়, ৪২ জন সিনিয়র সিটিজেন পরিস্কারভাবে দেখিয়েছেন তারা গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে এবং তারা দুর্নীতিতে আকণ্ঠ নিমজ্জিত।

সংবিধান কোনো পুথি নয় মন্তব্য করে তিনি বলেন, সংবিধান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটা ধর্মগ্রন্থের মতো পবিত্র। এটা কেনো পবিত্র, কেন গুরুত্বপূর্ণ? এটা আমার অধিকারকে রক্ষা করে। আমার অধিকার কী, কিসের অধিকার? কে আমার দেশ চালাবে সেটা নির্ধারিত করার অধিকার, আমার ভোটের অধিকার। কেনো ভোট দিতে হবে? ভোটের দ্বারা এমন একটা সরকার আনতে হবে যেই সরকার গণতন্ত্রের সুশাসন প্রতিষ্ঠা করবে।

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, আজকে আমরা কী দেখছি, গণতন্ত্রের এই সিরিয়াল কিলার নির্বাচন কমিশনকে সহযোগিতা করছে কারা, এই সরকার। যেই সরকার নির্বাচিত নয়। রাতের আঁধারে তারা আমলাদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত। পুলিশের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত। তাদের চুরি ডাকাতি পৃথিবীর অনন্য ইতিহাস। এইরকম চুরির ইতিহাস আর কোথাও নাই। প্রত্যেকে জানে কিন্তু নির্বাচন কমিশন ঘুমিয়ে থাকে।

তিনি বলেন, উনাদের যে মাহবুব সাহেব, ভালো কথা বলেছেন। কিন্তু উনি পদত্যাগ করেন না কেন? এই নির্বাচন কমিশনে উনি থেকে লাভ কী? একটা উদাহরণ সৃষ্টির জন্য আমি মাহবুব তালুকদারকে আহ্বান করছি পদত্যাগ করেন। দেশবাসী বুঝবে একজন হলেও প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর আছে।

আমাদেরকে সমবেতভাবে রাস্তায় নামতে হবে বলেও মন্তব্য করেন জাফরুল্লাহ।

আয়োজিত সংগঠনের আহ্বায়ক সৈয়দ হারুন অর রশিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, গণস্বাস্থ্যের গণমাধ্যম উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, বাংলাদেশ গণমুক্তি পাটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মোমেন প্রমুখ বক্তব্যে রাখেন।