কুড়িগ্রামের উলিপুরে পূর্ব শত্রুতার জেরে মারামারি, আহত ৬

কুড়িগ্রাম

কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলার তবকপুর ইউনিয়নের মধ্য উমানন্দ গ্রামে প্রভাবশালী ফয়জার রজমান সাথে একই গ্রামের সুরুজ্জামান গং দের সাথে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে মারামারি হয়েছে। এতে সুরুজ্জামানের একই পরিবারের ৬ জন গুরুতর আহত হয়েছে। স্থানীয়রা হামলার ঐ  স্থান থেকে মুমুর্ষ অবস্থায়  আহতদের উদ্ধার করে উলিপুর উপজেলা সরকারি  স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেছে।
বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) সন্ধ্যা ৬ ঘটিকার সময়  তবকপুর মধ্য উমানন্দ হাজীপাড়া গ্রামে এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহত ৬ জনের মধ্যে সুরুজ্জামান (৫৫) ও মোস্তাফিজার রহমান (৪৫) এর অবস্থা আশংকাজনক। তাদের উভয়ের মাথা ধারালো অস্ত্র ও রডের আঘাতে গুরুতর জখম হয়েছে বলে স্থানীয়রা এবং  কর্তব্যরত চিকিৎসক জানিয়েছেন। আহতদের মধ্যে বাকি ২ জন আহত  সুরুজ্জামানের ছেলে শরিফুল ইসলাম (১৭) ও চাচাতো ভাই মোঃ মজনু মিয়া ( ৪০) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। 


স্থানীয়রা বলেন, এই দুই পরিবারের মধ্যে প্রায়ই বাড়ীর সীমানা, রাস্তা চলাচল ও গাছের সুপাড়ি পারা নিয়ে কথা কাটাকাটি ও ঝগড়া বিবাদ হয়। সুরুজ্জামান এর ছেলে সজীব মিয়া(১৫) ও আবু প্রামানিকের ছেলে নিরব হোসেন (১৮)  সন্ধ্যার আগে স্থানীয়  জঙ্গলতলা বাজার থেকে বাড়ী ফেরার পথে প্রতিপক্ষ মোঃ ফয়জার রহমানের বাড়ীর সামনে আসলে বিবাদী পক্ষের ১৪/১৫ জন বাশের লাঠি, রড, ছোরা সহ দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত  হয়ে তাদের পথরোধ করে গালিগালাজ ও মারপিট করতে থাকে। মারপিট করার সময় ছেলে ও ভাতিজাকে  উদ্ধার করতে এগিয়ে আসেন বাবা সুরুজ্জামান, চাচা মোস্তাফিজার রহমান, মজনু মিয়া ও ভাই শরিফুল ইসলাম। দুই পরিবারের লোকজন মুখোমুখি হলে সংঘর্ষের ঘটনায় সুরুজ্জামান সহ উদ্ধারে এগিয়ে আসা সকলে গুরুতর জখম  ও আহত হন। ঘটনার প্রথম দুইজন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ীতে অবস্থান করলেও পরিবারের বাকি ৪ জন  হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

আহতদের পরিবার থেকে জানানো হয়, পরিবারের পুরুষগণ প্রায় সকলে আঘাতপ্রাপ্ত ও চিকিৎসারত। এ ঘটনায় গুরতর আহত মোস্তাফিজার রহমানের স্ত্রী মোছাঃ ফুলবানু বেগম (৪০) বাদী হয়ে গতকাল রাত আনুমানিক ১২ ঘটিকার সময় ১১ জন চিহৃিত ও অজ্ঞাত আরও প্রায় ৭/৮ জন কে আসামি করে লিখিত এজাহার উলিপুর থানায় দাখিল করেছেন।


উলিপুর থানার এস আই মশিউর রহমান জানান,  ঘটনাস্থল ও হাসপাতাল পরিদর্শন করে বিষয়টি পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কে অবগত করা হয়েছে । ঘটনা এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। উলিপুর থানা অফিসার ইনচার্জ ইমতিয়াজ কবীর বলেন লিখিত অভিযোগ হাতে পাওয়া মাত্র তদন্তপুর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করার হবে।


স্থানীয়রা বলছেন, অপরাধীরা প্রভাবশালী ও উচ্ছৃংখল হওয়ায় এলাকার গরীব দের মানুষ মনে করে না, সুরুজ্জামান ক্ষেতে খামারে ও মানুষের বাড়ীতে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে। এ ঘটনার উপযুক্ত বিচার দাবী করেছেন এলাকাবাসী।

জাবেদ আলী,  কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি