কুড়িগ্রামে ৬৫ বছরের বৃদ্ধর নদী ভাঙ্গন থেকে বাঁচার আকুতি

জাবেদ আলী, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:

কুড়িগ্রাম জেলা সদরের মোগলবাসা ইউনিয়নের ৬৫ বছরের বৃদ্ধ বাসিন্দা ইউনূস মিয়া করুন শুরে জানাচ্ছিলেন হামাকগুল্যাক নদীর ভাঙন থাকি বাঁচান বাহে । গত কয়দিন থাকি নদী হামার সোগ খাইল । হামাক দেখার কাইও নাই বাহে।

শনিবার (৩ এপ্রিল) কুড়িগ্রাম জেলা সদরের মোগলবাসা ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর নামক স্থানে বেলা ১১ টা থেকে টানা ৩ ঘন্টা ধরে তার মতো হাজারো মানুষ একত্রিত হয়ে তীব্র রোদে দাঁড়িয়ে ধরলা নদীর বাম তীর রক্ষার্থে ও ভাঙ্গন থেকে বাঁচার আকুতি জানিয়ে দ্রুত বাঁধ নির্মানের দাবিতে প্রতিবাদী মানববন্ধন হয়েছে।

প্রতিবাদী এই কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ আমির ডাক্তার, আরো উপস্থিত ছিলেন, নয়ারহাট হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুল করিম, কেরামত মেম্বার, স্থানীয় কৃষক এনামুল, শাওন, ইয়াকুব আলী প্রমুখ।

মানববন্ধনের বক্তারা বলেন, বিগত কয়েকদিনের ভাঙ্গনে মসজিদ, বিদ্যালয়, কৃষি জমি, ঈদগাহ মাঠ সবকিছু নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙ্গন প্রতিদিন আরো তীব্র হচ্ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের লোকজন কয়েকবার এসে ভাঙন কবলিত এলাকা ঘুরে দেখেছেন। কিন্তু আমরা এখন পর্যন্ত কোন কাজের অগ্রগতি দেখতে পাইনি। জানা গেছে জেলা সদরের মোগলবাসা ইউনিয়নের ৭, ৮ ও ৯ ওর্যাডের বাসিন্দা এই অঞ্চলে বসবাস করছেন । এলাকার ভাঙন রোধে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে কয়েকবার এলাকা পরির্দশন করে বাঁধ নির্মানের জন্য গত বছরের নভেম্বরে ঢাকায় চিঠি দিয়ে প্রস্তাবনা পাঠানো হলেও এখন পর্যন্ত সেই কাজের অগ্রগতি দেখা যায়নি।