কোম্পানীগঞ্জে শান্তি ফেরাতে কাদের মির্জার যেসব প্রস্তাব

কোম্পানীগঞ্জ

কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগের চলমান দুই গ্রুপের দ্বন্দ্ব সংঘাতের জেরে উত্তাপ্ত ছড়াচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে আর যাতে রক্তপাত, সংঘর্ষ না হয় এবং অস্ত্র, মাদক, দখলদার ও দুর্নীতিবাজমুক্ত পরিবেশে মানুষ যাতে নিঃশ্বাস নিতে পারে সেজন্য কয়েকটি প্রস্তাব রেখেছেন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা।

বুধবার ভোর সাড়ে ৪টায় তার অনুসারী স্বপন মাহমুদের ফেসবুক থেকে লাইভে এসে ১১ দফা প্রস্তাবনা তুলে ধরেন তিনি।

কাদের মির্জার ১১ দফা প্রস্তাবনা হলো—

১. নোয়াখালীর যে সকল প্রশাসনিক কর্মকর্তা নিরপেক্ষতা হারিয়েছে, তাদের সরিয়ে অস্ত্রের রাজনীতি বন্ধ করতে হবে।

২. সাংবাদিক মুজাক্কির ও সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালক আলাউদ্দিন হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত করে দ্রুত বিচার করতে হবে।

৩. আমার ছেলে তাশিক মির্জার ওপর হামলায় সিসিটিভি ফুটেজ দেখে দোষীদের আইনের আওতায় আনতে হবে।

৪. গত তিন মাসে করা সকল মামলার দ্রুত সুষ্ঠু তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

৫. নিরপেক্ষভাবে পুলিশের নির্যাতনের মামলার বিচার করতে হবে।

৬. কোম্পানীগঞ্জের আগামী ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

৭. কোম্পানীগঞ্জে রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক অন্যায়, অনিয়ম ও দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে।

৮. কোম্পানীগঞ্জে রাজনৈতিক সহাবস্থান নিশ্চিত করতে হবে।

৯. গত তিন মাসে অন্যায়ভাবে যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে, তাদের দ্রুত মুক্তি দিতে হবে।

১০. গত তিন মাসে যারা কোম্পানীগঞ্জে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করেছে, তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে হবে।

১১. যে সকল ঘটনায় মামলা হয়নি, যেমন— দাগনভূঁইয়ায় আমার ওপর হামলা, গুলিবর্ষণ এবং চট্টগ্রামের হামলার ঘটনার দ্রুত বিচার করতে হবে।