খায়রুজ্জামানকে দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনা হবে : পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা: মালয়েশিয়ায় আটক বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত এম খায়রুজ্জামানকে দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনা হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম।

আজ বৃহস্পতিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

শাহরিয়ার আলম বলেন, খায়রুজ্জামানকে ডিপোটেশন সেন্টারে কারান্তরীণ করে রাখা হয়েছে। আমি যতদূর বুঝি, আবারও তাকে সশরীরে জিজ্ঞাসাবাদ করার এবং মামলাটিকে খতিয়ে দেখার সুযোগ আছে। সেটা আইন মন্ত্রণালয় ভালো বলতে পারবে। যত দ্রুত সম্ভব আমরা তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছি।

তিনি বলেন, মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় চিঠিতে অভিবাসন সংক্রান্ত একটি আইন ভাঙার কথা জানিয়েছে। এটা দূতাবাস জানে আমার এই মুহূর্তে জানা নেই।

এর আগে বুধবার (৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে মালয়েশিয়ার রাজধানীর আমপাংয়ের নিজ বাসা থেকে খায়রুজ্জামানকে গ্রেপ্তার করে মালয়েশিয়ার পুলিশ।

জানা গেছে, খায়রুজ্জামান মালয়েশিয়ায় শরণার্থী হিসেবে বসবাস করছিলেন। শরণার্থী হওয়ার আগে তিনি ওই দেশেই হাইকমিশনার হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন।

খায়রুজ্জামানের আইনজীবী এ এস ডালিওয়াল অবিলম্বে তার মুক্তির দাবি করেন। এ নিয়ে মালয়েশিয়া কর্তৃপক্ষকে একটি আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন তিনি।

তিনি জানান, কোনো বৈধ কারণ ছাড়াই খায়রুজ্জামানকে আটক করা হয়েছে এবং ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মুক্তি না দিলে আদালতে হেবিয়াস কর্পাস (বন্দি অধিকার) দায়ের করবেন।

উল্লেখ্য, সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর মোহাম্মদ খায়রুজ্জামান ১৯৭৫ সালের জেল হত্যা মামলায় অভিযুক্ত ছিলেন। পরে তিনি এ মামলায় খালাস পান। খালাস পাওয়ার পর ২০০৫ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০০৭ সালের আগস্ট পর্যন্ত মিয়ানমারে রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিযুক্ত হন। পরে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ পান।

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসীন হলে তাকে দেশে ফিরে আসার আদেশ দেন। সেই সময় দেশে ফিরে না এসে পরবর্তীতে জীবনের ঝুঁকি রয়েছে উল্লেখ করে জাতিসংঘের শরণার্থী কার্ড সংগ্রহ করেন। এর পর থেকে মালয়েশিয়ায় বসবাস করছেন তিনি।

প্রভাতনিউজ/এবিএস