গাছের মেহেদী নাকি আর্টিফিশিয়াল মেহেদী!

ঈদ মানেই নারীদের কাছে নতুন পোশাকের সাথে হাত ভর্তি করে মেহেদীর নকশা। মেহেদী ছাড়া ঈদ যেন অসম্পূর্ণ প্রায়। তবে কেমন মেহেদী হাতে দেবেন তা নিয়ে অনেকেই থাকেন চিন্তিত। সব থেকে বেশি ভাবায় গাছের মেহেদী নাকি দোকানে পাওয়া আর্টিফিশিয়াল মেহেদী ভালো। এই ঈদে কোন মেহেদীর নকশায় রাঙাবেন হাত জেনে নিন।

গাছের কাঁচা পাতায় কোনো কেমিক্যাল দ্রব্য মিশ্রিত থাকে না। ফলে স্কিনের কোনো ক্ষতি হয় না। তবে মেহেদী পাতাগুলো অবশ্যই ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে পেস্ট করতে হবে। পেস্ট কোনো নোংরা পাত্রে রাখা যাবে না। আর ষ্টীলের কোনো পাত্রে মেহেদী পেস্ট রাখা যাবে না। সবসময় প্লাস্টিকের পাত্র ব্যবহার করতে হবে। মেহেদী পাতা পেস্ট করে বেশি দিন রাখা যাবে না। এতে রঙ নষ্ট হয়ে যায়। গাছের মেহেদী চুলের জন্যও অনেক কার্যকরী।

অন্যদিকে, বাজারে যে সকল মেহেদী পাওয়া যায় সেগুলোতে অনেক বেশি পরিমাণে রাসায়নিক দ্রব্য মিশ্রিত থাকে। এমনকি আর্টিফিশিয়াল রঙও মিশ্রিত থাকে। যা ত্বকের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। ক্যান্সারের মতো ভয়ানক রোগ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে এ সকল পণ্য ব্যবহার করলে।

যে সকল উপাদান প্রাকৃতিক এবং কোনো রাসায়নিক দ্রব্য মিশ্রিত নেই এমন পণ্য ত্বকে ব্যবহার করতে হবে। গাছের মেহেদী রঙ বসতে সময় লাগে। তবে রঙ দীর্ঘস্থায়ী করার জন্য নানা ধরণের উপায় রয়েছে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো চা পাতার পানি। এর ব্যবহারে রঙ হয় উজ্জ্বল ও দীর্ঘস্থায়ী।