চিনিকল বন্ধ কিংবা কোন শ্রমিক ছাটাই করা হবে না:শিল্পমন্ত্রী

0
18

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন বলেছেন, সরকার রুগ্ন চিনিকলগুলোকে আধুনিকায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এতে করে কোন চিনিকল বন্ধ করা হবে না কিংবা কোন শ্রমিক ছাটাই করা হবে না। চিনিকলগুলোতে বিশাল সম্পদ রয়েছে। সেগুলো আমরা কীভাবে কাজে লাগাতে পারি, আরও আয়ের ব্যবস্থা করতে পারি- সেজন্য দেশ ও বিদেশের বিনিয়োগকারীদের সাথে যোগাযোগ করছি। চিনিকলের জায়গায় পাওয়ার প্লান্টসহ বিভিন্ন রকমের কৃষিভিত্তিক কল কারখানা গড়ে তোলা হবে।বৃহস্পতিবার দুপুরে পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার ধনিপাড়ায় সারের বাফার গোডাউন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার জনবান্ধব সরকার। আমরা সাধারণ মানুষের চিন্তা করি, তৃণমূলের চিন্তা করি। আমরা কৃষক-শ্রমিক মেহনতি মানুষের চিন্তা করি। এই অঞ্চল কৃষিভিত্তিক অঞ্চল। সে কারণে আমরা কৃষকদের সারের চাহিদা পূরণ করেছি, বিদ্যুতের চাহিদা পূরণ করেছি। এই অঞ্চলে গ্যাসের সুযোগ নাই। তাই আমরা চিনিকল এলাকায় এগ্রোবেজ শিল্প কারখানাসহ পাওয়ার প্লান্ট স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছি।

অনুষ্ঠানে রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, আগামী ১৫ অক্টোবর পঞ্চগড়-রাজশাহী নতুন ট্রেন চালু হবে। এটা এ অঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনে দাবি ছিল। নতুন নতুন শিল্প গড়ে তোলার বিকল্প নেই। কৃষিকে টেকসই করতে হলে কৃষিশিল্প সমৃদ্ধ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসক ড: সাবিনা ইয়াসমিনের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পঞ্চগড়-১ আসনের সংসদ সদস্য মজাহারুল হক প্রধান, বিসিআইসির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার সাদাত সম্রাট, জেলা ফার্টিলাইজার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আব্দুল হান্নান শেখ বক্তব্য রাখেন।

দেশের বিভিন্ন জেলায় ১৩টি বাফার গোডাউন নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় পঞ্চগড়ে-ঢাকা মহাসড়কের ধারে প্রায় চার একর জমির ওপর ১০ হাজার মেট্রিক টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন বাফার গোডাউন নির্মাণ করা হয়েছে। সেনা কল্যাণ সংস্থা ২৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে এই বাফার গোডাউন নির্মাণ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করে।