টি টোয়েন্টি র‍্যাঙ্কিংয়ে দ্বিতীয় সাকিব

নিষেধাজ্ঞার খড়্গ কাটিয়ে একের পর এক চমক দেখাচ্ছেন সাকিব আল হাসান। ভারমুক্ত হয়ে দেশে ফিরেছেন রাজার মতোই। ফিরেই পেয়েছেন হারানো সিংহাসন। ওয়ানডে ক্রিকেটে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের সাম্রাজ্য দখলে নিয়েছেন বাংলার ক্রিকেটের বরপুত্র সাকিব আল হাসান।   

আইসিসির প্রকাশিত ওয়ানডে অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষস্থান পেলেও স্বল্প দৈর্ঘ্যের ফরমেট টি-টোয়েন্টিতে দ্বিতীয় স্থানে নেমেছেন সাকিব। আইসিসি প্রকাশিত টি টোয়েন্টি র‍্যাঙ্কিংয়ে ২৬৮ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে অবস্থান তার। এই তালিকায় শীর্ষে আফগানিস্তানের অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবী। তার রেটিং পয়েন্ট ২৯৪। 

নিষিদ্ধ হবার সময় সাকিবের রেটিং পয়েন্ট ছিলো ৩৫৫। নিষেধাজ্ঞার এক বছরে সাকিবের ৮৭ রেটিং পয়েন্ট কেটেছে আইসিসি। অথচ ওয়ানডেতে সাকিবের রেটিং পয়েন্ট ছিলো ৩৯৪। সেখানে পয়েন্ট কেটেছিলো মাত্র ২১। তবে টি-টোয়েন্টিতে সাকিবের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীরা আহামরি পারফরম্যান্স না করলেও এই ফরমেটে যেন একটু বেশিই পয়েন্ট কেটে নিয়েছে আইসিসি।  

এর আগে আইসিসির প্রকাশিত ওয়ানডে অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিংয়ে ৩৭৩ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে চূড়ায় উঠেছেন তিনি। সাকিবের ফিরে আসাকে যা করেছে আরো রঙিন। আনন্দের মাত্রাকে করেছে দ্বিগুণ। 

এছাড়া এক বছর পর মাঠে ফিরেই ফিটনেস পরীক্ষাতেও বাজিমাত করছেন সাকিব। ছাপিয়ে গেছেন সবাইকে। সর্বোচ্চ স্কোর গড়ে ফিটনেস পরীক্ষার বৈতরণী পার হয়েছেন এই বিশ্বসেরা ওয়ানডে অলরাউন্ডার।  

নিষেধাজ্ঞার কারণে এক বছর আগে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা আইসিসি সব রকম র‍্যাঙ্কিং থেকে সরিয়ে ফেলেছিলো সাকিবের নাম। নিষেধাজ্ঞা শেষে আবারো নিজের স্বরূপে ফিরেছেন সাকিব। এখন অপেক্ষা শুধু মাঠের নামার।