ঢাকায় দুই নারীসহ ২৪ ডাকাত-ছিনতাইকারী গ্রেপ্তার

রাজধানীতে বিভিন্ন এলাকায় গত ২৪ ঘণ্টায় অভিযান চালিয়ে দুই নারীসহ ডাকাতি, অজ্ঞান পার্টি ও ছিনতাই চক্রের ২৪ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগ।

বুধবার ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিবির যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম। তিনি বলেন, সম্প্রতি রাজধানীতে ছিনতাইয়ের ঘটনায় এক ব্যবসায়ী নিহত ও অপরাধ বৃদ্ধি পাওয়ায় ডিএমপির থানা পুলিশসহ গোয়েন্দা বিভাগ বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছে। এরই ধারাবাহিকতায় গতরাতে ডিবির রমনা ও মতিঝিল বিভাগ বিশেষ অভিযান চালিয়ে ২৪ জনকে গ্রেপ্তার করে।

অভিযানে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে মালা নামে ডাকাতদের আশ্রয়দাতা এক নারীসহ নয় ডাকাতকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা রমনা বিভাগ। গতকাল মুগদা থানার মানিকনগর এলাকার একটি বাসা থেকে ডাকাতির প্রস্তুতির সময় তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন কোহিনুর বেগম ওরফে মালা (আশ্রয়দাতা), রাসেল মাহমুদ, মাসুদ মিয়া, শামীম, আমিনুল ইসলাম হৃদয়, পারভেজ, শহিদুল, বাবু ওরফে ব্লেড বাবু ও জয় মিয়া। এ সময় তাদের কাছ থেকে একটি চাপাতি ও দুটি ছোরা উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার মালা জানায়, তিনি ও তার স্বামী দীর্ঘদিন ধরে ডাকাত দলের পৃষ্ঠপোষকতা করে আসছে। তারা ডাকাত দলের কোন সদস্য কখনও গ্রেপ্তার হলে বা কোন বিপদে পড়লে তাদের জামিন করার ব্যবস্থাসহ সব ধরনের সহযোগিতা করে থাকে। তাদের এই সহযোগিতার জন্য তারা লুন্ঠিত মালামালের একটি বড় অংশের ভাগ নেয়। তাদের বিরুদ্ধে মুগদা থানায় মামলা করা হয়েছে।

এছাড়া রমনা বিভাগের অপর একটি টিম হাজারীবাগে বিশেষ অভিযান চালিয়ে অজ্ঞান পার্টির নয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করে। তারা হলেন মোজাম্মেল হোসেন ওরফে মুজা, মকবুল, ইলিয়াস, আনোয়ার হোসেন, সুমন হোসেন ইকবাল হোসেন, লিটন, রবি আউয়াল ও মো. হেলাল। এসময় তাদের কাছ থেকে অজ্ঞান করার পাঁচটি স্প্রে, ৪টি গুল, ৮টি মলম ও জিপারে ৩ প্যাকেটে মরিচের গুড়া জব্দ করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা জানায়, তারা ঢাকা শহরের বিভিন্ন শপিংমল, বাসস্ট্যান্ড, সদরঘাট ও রেলস্টেশন এলাকায় আসা ব্যক্তিদের টার্গেট করে। টার্গেটকৃত ব্যক্তি যখন বাসে উঠে তখন তারা সুযোগ বুঝে কৌশলে বাস যাত্রীদের চোখে মুখে মলম বা স্প্রে প্রয়োগ করে অজ্ঞান করে তাদের সঙ্গে থাকা সবকিছু নিয়ে যায়। তাদের বিরুদ্ধে হাজারীবাগ থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।

অন্যদিকে গোয়েন্দা মতিঝিল বিভাগের অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ টিম তেজগাঁও এলাকা থেকে সংঘবদ্ধ মোবাইল চোরাকারবারি দলের এক নারীসহ ছয় সক্রিয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করে। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৩০টি চোরাই মোবাইল উদ্ধার করা হয়।

গ্রেপ্তাকৃতরা হলেন রবিন ওরফে নবী, মোঃ ছাঈদ, মোছাঃ রুনা ওরফে রোজিনা, মনোয়ার, মোঃ রুবেল মিয়া ওরফে হাসান ও আলামীন।

এই বিষয়ে তেজগাঁও থানায় নিয়মিত মামলা প্রক্রিয়াধীন বলে জানান মাহবুব আলম।

ছিনতাইকারী চক্রের এই সকল সদস্যরা কোনো ব্যক্তির সহযোগিতা পায়কি না এমন প্রশ্নের জবাবে গোয়েন্দা পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, গ্রেপ্তারদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। তারা সবাই পেশাদার ছিনতাইকারী দলের সদস্য। আমরা কয়েকজনের নাম পেয়েছি। তাদেরকেও গ্রেপ্তার করবো।

ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপরাধ রোধে বিট পুলিশি কার্যক্রম জোরদার করার পাশাপাশি থানা পুলিশ ও গোয়েন্দা অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান এই গোয়েন্দা কর্মকর্তা।