দল বেঁধে থানায় হাজির হত্যা মামলার ৩২ আসামি

সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে হত্যা মামলার ৩২ আসামি স্বেচ্ছায় থানায় আত্মসমর্পণ করেছেন। মঙ্গলবার (১৮ মে) দিরাই থানায় আত্মসমর্পণের পর তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন দিরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিজুর রহমান।

আত্মসমর্পণকারীরা হল দিরাই বাসিন্দা পাবেল মিয়া (৩০), জয় তালুকদার (২৩), আজহার তালুকদার (২২), বাবু তালুকদার (২৫), রেজু তালুকদার (৩০), জসিম মিয়া (৩০), ছুটিল তালুকদার (৫০), রুমান তালুকদার (২৫), ছট্ট মিয়া তালুকদার (৪০), ছলিম তালুকদার (৫২), সুজা তালুকদার (৪০), ছানুয়ার তালুকদার (৫৫), সোহাগ রাজা তালুকদার (৩৫), সারিক তালুকদার (৩০), আবুক খায়ের মিয়া (৪৫), জাহাঙ্গীর তালুকদার (৫২), অমৃত তালুকদার (২৪), মুকুট তালুকদার (২৫), বখতিয়ার তালুকদার (২০), সুহেল মিয়া (৩০), সেজেল তালুকদার (৩৫), মেহরাব তালুকদার (২৬), লেকান্নুর মিয়া ওরফে লেকানুর (৩৫), আব্দুল হাকিম (৩২), তফুর তালুকদার (৩৪), ছালে আহমদ তালুকদার (৪০), হুমায়ুন তালুকদার (২২), সাদেক নুর (২৫), কিবরিয়া তালুকদার (২৫), নাছির তালুকদার (২২),আবু সালেক তালুকদার (২৬), মীর হোসেন তালুকদার (২৭)।

দিরাই থানা পুলিশ সূত্র জানা যায়, গত ১৩ মার্চ দিরাই উপজেলার ভাটিপাড়া ইউনিয়নের নুরনগর গ্রামে আধিপত্য বিস্তার, সরকারি জায়গা দখল ও মামলা মোকদ্দমার জেরে দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। গ্রামের সামছুল হক ও পারুল তালুকদারের লোকদের মধ্যে সংঘটিত ওই সংঘর্ষে সামছুল হক গ্রুপের শাহমূলক (৪০) নিহত হয়। পরে নিহতের ভাই সামছুল হক বাদি হয়ে দিরাই থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়ের পর থেকে আসামিদের ধরতে অভিযান চালায় পুলিশ কিন্তু আসামিরা বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে আত্মগোপণ করেন। কিন্ত দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর মঙ্গলবার সকাল ১১ টার দিকে দল বেঁধে দিরাই থানায় এসে আত্মসমর্পণ করেন ৩২ জন আসামি। পরে তাদের গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হলে আদালত তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

দিরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিজুর রহমান বলেন, স্বেচ্ছায় আজকে দিরাই থানায় দলবেঁধে এসে হত্যা মামলার ৩২ জন আত্মসমর্পণ করে। পরে আমরা তাদের হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠালে আদালত তাদের কারাগারে পাঠায়।

গত ১৩ মার্চ দিরাই উপজেলার ভাটিপাড়া ইউনিয়নের নুরনগর গ্রামে আধিপত্য বিস্তার, সরকারি জায়গা দখল ও মামলা মোকদ্দমার জেরে দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। গ্রামের সামছুল হক ও পারুল তালুকদারের লোকদের মধ্যে সংঘটিত ওই সংঘর্ষে সামছুল হক গ্রুপের শাহমূলক (৪০) নিহত হয়। তিনি নুরনগর গ্রামের বেক্কই মিয়ার ছেলে।