দুর্নীতিবাজ সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত মানুষের মুক্তি মিলবে না : রিজভী

অবৈধ, স্বৈরাচার ও দুর্নীতিবাজ সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত মানুষের মুক্তি মিলবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

ঢাকা মহানগর পশ্চিম ছাত্রদলের উদ্যোগে আজ রোববার মোহাম্মদপুরের জহুরি মহল্লায় আগুনে পুড়ে যাওয়া বস্তিবাসীদের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী ও শীতবস্ত্র বিতরণের সময় রুহুল কবির রিজভী এসব কথা বলেন।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘এ সরকারের পতনের মধ্য দিয়ে মানুষের শান্তি ও শৃঙ্খলা ফিরে আসবে।’

রুহুল কবির রিজভী অসুস্থ হওয়ার পর হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরে এই  প্রথম কোনো কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করলেন।

রিজভী বলেন, ‘আজ চারদিকে শুধু আগুন। মানুষের বাড়িঘর জ্বলছে। ঢাকার বস্তি গ্রাস করার জন্য, দখল করার জন্য ক্ষমতাসীনরা মরিয়া হয়ে উঠেছে। গোটা জাতির নিরাপত্তা নেই, মানুষের জীবনের নিরাপত্তা নেই। বাড়িঘরের নিরাপত্তা নেই। বেঁচে থাকার নিরাপত্তা নেই।’

রিজভী আরো বলেন, ‘আজ মানুষ নিজের বাড়িঘরে থাকতে পারছে না। ঢাকার অনেক বস্তি ক্ষমতাসীনরা আগুন লাগিয়ে দখল করে নিয়েছে।’

বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নের কথা বলেন। কোনো স্বৈরাচারের উন্নয়নের কথায় জনগণের উন্নয়ন হয় না। জনগণের কল্যাণ বয়ে আনে না। সরকারের মন্ত্রী-এমপিরা যখন উন্নয়নের কথা বলেন, তখন বুঝতে হবে হাজার কোটি টাকা দুর্নীতির ষড়যন্ত্র চলছে।’

সরকারের সমালোচনা করে রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘করোনা হু হু করে বাড়ছে। আজ হাসপাতালে বেড নেই। রোগীরাও চিকিৎসা না পেয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছে। করোনায় মৃত্যুবরণ করছে। সরকারের সেদিকে কোনো খেয়াল নেই। করোনার মধ্যে সরকারের লোকেরা আগুন দিয়ে মানুষকে গৃহহীন করছে।’

ত্রাণ বিতরণের সময় ছাত্রদল পশ্চিমের সভাপতি কামরুজ্জামান জুয়েল, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি লিটন মাহমুদ বাবু, আমিনুর রহমান লিটন, এইচ এম মোজাম্মেল, মাজহারুল ইসলাম রাসেলসহ বিএনপি, ছাত্রদল, যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।