নিষেধাজ্ঞার সমুচিত জবাব দেওয়া হবে, যুক্তরাষ্ট্রকে চীনের হুঁশিয়ারি

মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে সম্প্রতি চীনের কিছু ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে বেইজিং। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিং বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র যদি বেপরোয়া কিছু করে, চীন তার সমুচিত জবাব দিতে কার্যকর পদক্ষেপ নেবে। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরার প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

সোমবার বেইজিংয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ওয়াং ওয়েনবিং বলেন, যুক্তরাষ্ট্রকে অতিসত্বর ভুল সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে চীনের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক না গলানোর এবং চীনের স্বার্থে আঘাত না হানার আহ্বান জানাচ্ছি।

গত শুক্রবার চীন, মিয়ানমার, উত্তর কোরিয়া ও বাংলাদেশের কিছু ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ওপর মানবাধিকার লঙ্ঘনজনিত নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এর প্রতিক্রিয়ায় সংবাদ সম্মেলন করে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞাকে অযৌক্তিক কর্মকাণ্ড হিসেবে আখ্যায়িত করেন চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের দুই দিনব্যাপী গণতন্ত্র সম্মেলনের পরই সাম্প্রতিক এই নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা এল। গণতন্ত্র সম্মেলনে বাইডেন বলেছিলেন, শিগগিরই বিশ্বব্যাপী গণতন্ত্র জোরদারে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্র সম্মেলনের সমালোচনা করে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, একটি দেশ গণতান্ত্রিক কি না, নিজেদের মাপকাঠি দিয়ে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত দিতে পারে না ওয়াশিংটন। চীনের জাতীয় সার্বভৌমত্ব, নিরাপত্তা ও উন্নয়ন স্বার্থ অবাধ রাখতে বেইজিং বদ্ধপরিকর।

চীনের স্বায়ত্তশাসিত জিনজিয়াং প্রদেশে উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায়ের সঙ্গে দেশটির সরকারের আচরণ প্রসঙ্গে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এই মুখপাত্র বলেন, সংঘাত, সন্ত্রাসবাদ, বিচ্ছিন্নতাবাদ এবং ধর্মীয় সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলোকে নিয়ন্ত্রণেও সরকার প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।’

ওয়াং ওয়েনবিং বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের অযৌক্তিক কর্মকাণ্ড বেইজিংয়ের উন্নয়নের চিত্র বদলাতে পারবে না, চীনের অগ্রগতি থামাতে পারবে না। এমনকি ঐতিহাসিক উন্নয়নের পথও রোধ করতে পারবে না যুক্তরাষ্ট্র।
প্রভাতনিউজ/এনজে