পাবনায় আ.লীগ প্রার্থীর গাড়ি বহরে হামলায় আহত ১৫

পাবনার বেড়া উপজেলা পরিষদের আসন্ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়নপ্রাপ্ত রেজাউল হক বাবুর নির্বাচনী শোডাউনের গাড়ি বহরে হামলার ঘটনা ঘটেছে। রেজাউল হক বাবুর অভিযোগ তার প্রতিপক্ষ গ্রুপের লোকজন এ হামলা চালিয়েছে।

শনিবার (১৪ নভেম্বর) রাতে বেড়া বাসস্ট্যান্ডে এ ঘটনা ঘটে। গাড়ি বহরের ২৫-৩০টি গাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করা হয়। এতে গাড়িতে থাকা ১৫-১৬ জন সমর্থক আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে ৪ জনের অবস্থা গুরুতর।

প্রত্যক্ষদর্শী বেশ ক’জন জানান, শনিবার (১৪ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে চারটায় আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে দলীয় টিকিট পেয়ে পাবনার বেড়া উপজেলার কাজীরহাট ঘাটে পৌঁছান রেজাউল হক বাবু। এ সময় সেখানে বেড়া, সাঁথিয়া, সুজানগর ও পাবনা সদরের অনেক দলীয় নেতা-কর্মী তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

তিনি সেখানে অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন। পরে অর্ধশতাধিক গাড়িবহর নিয়ে নির্বাচনী শোডাউন করার জন্য বেড়া পৌর সদর পর্যন্ত যান।

বেড়া বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছামাত্র হঠাৎ তার গাড়ি বহরে হামলা করতে থাকে দুবৃর্ত্তরা। তারা একের পর এক গাড়ি ভাংচুর করতে থাকেন।

তারা লাঠি, হকিস্টিক, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকেন। এতে রেজাউল হক বাবুর সমর্থকরা দিশেহারা হয়ে পড়েন। তারা প্রাণ বাঁচাতে দৌড়াদৌড়ি শুরু করেন। এ সময় হামলাকারীরা অনেক সমর্থকের উপর হামলাও চালায়। এতে রেজাউল হক বাবুর ১৫-১৬ জন সমর্থক আহত হন।

হামলার শুরুর পর পরই বেশির ভাগ গাড়ির যাত্রী ও মোটরসাইকেল আরোহী পালিয়ে আসতে সক্ষম হলেও শোডাউনের ১০-১২টি গাড়ি আটকা পড়ে। সেখান সন্ধ্যা পৌনে সাতটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত হামলার ঘটনা ঘটে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ দুলাল জানান, বেড়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল কাদেরের মৃত্যুতে শূন্য আসনে শুক্রবার জাতসাখিনী ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল হক বাবুকে মনোনয়ন দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন দলের মনোনয়ন বোর্ড। দলের সিদ্ধান্ত মেনে মনোনয়ন প্রাপ্ত বাবুকে নিয়ে আমরা শনিবার (১৪ নভেম্বর) বিকেলে ঢাকা থেকে এলাকায় ফিরে আসি। দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে সদ্য প্রয়াত বেড়া উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল কাদেরের কবরস্থান জিয়ারত করার জন্যে যাওয়ার সময় অতর্কিত হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা।

বেড়া উপজেলা পরিষদ উপ-নির্বাচনে সদ্য মনোনয়ন প্রাপ্ত রেজাউল হক বাবু বলেন, বড় দল হিসেবে দলের অভ্যন্তরে মনোনয়ন নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা রয়েছে। কিন্তু সভানেত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্ত অমান্য করে এমন হামলা দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্যের শামিল। আমারা এই হামলার বিচার দাবি জানাই।

বেড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম জানান, আওয়ামী লীগের দুটি গ্রুপের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে এ ঘটনা ঘঠেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, পাবনার বেড়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদের করোনা আক্রান্ত হয়ে গত ১০ সেপ্টেম্বর মারা যান। এ কারণে এ উপজেলায় আগামী ১০ ডিসেম্বর চেয়ারমান পদে ভোট অনুষ্ঠিত হবে।