পুঁজিবাজারে বেড়েছে সূচক ও লেনদেন

পুঁজিবাজার

করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউনের ষষ্ঠ দিন সোমবারও (১৯ এপ্রিল) সূচকের উত্থানের মধ্য দিয়ে পুঁজিবাজারে লেনদেন শেষ হয়েছে। এদিন দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) লেনদেন বেড়েছে। ডিএসই ও সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। 

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, সোমবার ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স ১৮ পয়েন্ট বেড়ে পাঁচ হাজার ৩৪৯ পয়েন্টে অবস্থান করছে। অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএসইর শরীয়াহ সূচক ৪ পয়েন্ট এবং ডিএসই-৩০ সূচক ৬ পয়েন্ট বেড়ে যথাক্রমে ১২১৬ ও ২০৪৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

এদিন ডিএসইতে ৬৯৭ কোটি ২৯ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। যা আগের কার্যদিবসের চেয়ে ডিএসইতে ৯৫ কোটি টাকার লেনদেন বেড়েছে। আগের দিন ডিএসইতে ৬০২ কোটি ৭৬ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছিল।

সোমবার ডিএসইতে ৩৪৬টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটের লেনদেন হয়েছে। এগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ১২৬টি কোম্পানির, কমেছে ১৫২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৬৮টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটের দর।

এদিন লেনদেনের শীর্ষে থাকা ১০ প্রতিষ্ঠান হলো- বেক্সিমকো লিমিটেড, বিডি ফাইন্যান্স, লংকাবাংলা, বিএটিবিসি, লাফার্জহোলসিম, রবি, এশিয়া প্যাসিফিক ইন্স্যুরেন্স, বেক্সিমকো ফার্মা, নিটল ইন্স্যুরেন্স ও সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই সোমবার ৫৭ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১৫ হাজার ৪৭১ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৪০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ১০৮টির, কমেছে ১০৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৪টি কোম্পানির শেয়ার দর।

সোমবার সিএসইতে ৩৪ কোটি ৫২ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। যা আগের দিনের চেয়ে ১৩ কোটি টাকা বেশি। আগের দিন সিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ২১ কোটি ৬৯ লাখ টাকার।