বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত : খাদ্যমন্ত্রী

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেছেন, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। বাংলাদেশকে বাদ দিয়ে যেমন বঙ্গবন্ধুকে চিন্তা করা যায় না, তেমনি বঙ্গবন্ধুকে বাদ দিয়ে বাংলাদেশের কথা চিন্তা করা যায় না।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব উদযাপন উপলক্ষে বুধবার (১৭ মার্চ) সকাল সাড়ে ১০টায় খাদ্য ভবনের নিচতলায় স্থাপিত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন খাদ্যমন্ত্রী।

পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশের মানুষের জন্য একটি স্বাধীন ভূখণ্ডের স্বপ্ন দেখেছিলেন। স্বাধীন একটি দেশ উপহার দেয়ার মাধ্যমে এ দেশের জনগণকে পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্ত করতে চেয়েছিলেন তিনি। তার সে স্বপ্নের বাস্তবায়ন হয় ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর। স্বাধীনতার পর তিনি যখন বিভিন্ন পরিকল্পনা নিয়ে দেশকে পুনর্গঠন করে উন্নয়নের দিকে নিয়ে যাচ্ছিলেন, ঠিক তখনই স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি তাকে সপরিবারে হত্যা করে।

Shadhon-1.jpg

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতাকে হত্যা করলেও তারা তার আদর্শকে হত্যা করতে পারেনি। জীবিত বঙ্গবন্ধুর চেয়ে মৃত বঙ্গবন্ধু আরও বেশি শক্তিশালী। তার আদর্শ প্রতিটি মানুষের অন্তরে পৌঁছে গেছে।

এরপর বঙ্গবন্ধু ও পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট শাহাদাতবরণকারী তার পরিবারের সদস্য এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

খাদ্য সচিব ড. মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম, খাদ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক শেখ মুজিবর রহমান, অতিরিক্ত মহাপরিচালক আজিজ মোল্লা, বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আব্দুল কাইয়ুম, খাদ্য পরিকল্পনা ও পরিধারণ কমিটির মহাপরিচালক শহীদুজ্জামান ফারুকীসহ খাদ্য মন্ত্রণালয় ও খাদ্য অধিদফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।