বিরল ঘটনার সাক্ষী জাপান, যমজ শাবকের জন্ম দিলো জায়ান্ট পান্ডা

জাপানের রাজধানী টোকিওর সবচেয়ে পুরনো উয়েনো চিড়িয়াখানায় জায়ান্ট পান্ডা শিন শিনের বসবাস। সেখানেই গতকাল বুধবার (২৩ জুন) পান্ডাটি যমজ শাবকের জন্ম দিয়েছে। এর মধ্য দিয়ে চার বছর পরে ওই চিড়িয়াখানায় কোনো পান্ডাশাবকের জন্ম হলো। তবে শাবক দুটি ছেলে নাকি মেয়ে, সেটা এখনো জানায়নি চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ।

এক প্রতিবেদনে সিবিএস নিউজ জানিয়েছে, বিশ্বজুড়ে বিলুপ্তির ঝুঁকিতে রয়েছে জায়ান্ট পান্ডা। এ প্রজাতির মাত্র কয়েক হাজার পান্ডা টিকে আছে। বুনো কিংবা চিড়িয়াখানার আবদ্ধ পরিবেশ—উভয় জায়গাতেই জায়ান্ট পান্ডার বংশ বৃদ্ধি করানো বেশ কঠিন। তাই একসঙ্গে দুটি শাবকের জন্ম দেওয়ার ঘটনাও বেশ বিরল।

একসঙ্গে দুটি পান্ডাশাবকের জন্মের বিষয়ে উয়েনো চিড়িয়াখানার পরিচালক ইয়ুতাকা ফুকুদা বলেন, ‘প্রথমবারের মতো এই চিড়িয়াখানায় পান্ডার যমজ শাবকের জন্ম হয়েছে। দ্বিতীয় শাবকটির জন্মের খবর শুনে আমি খুশিতে চিৎকার করেছিলাম।’

চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ একটি শাবককে ইনকিউবেটরে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ বিষয়ে চিড়িয়াখানা মুখপাত্র নাওয়া ওহাসি বলেন, ‘মা পান্ডাটি যখন একটি শাবককে দুধ খাওয়াবে, ওই সময় আমরা অন্য শাবকটিকে ইনকিউবেটরে রাখব।’

জায়ান্ট পান্ডা শিন শিনের বয়স ১৫ বছর। তার সঙ্গীর নাম রি রি। দুটি পান্ডাকেই চীন থেকে জাপানে আনা হয়েছিল। এর আগে ২০১৭ সালে জিয়াং জিয়াং নামে আরেকটি শাবকের জন্ম দিয়েছে শিন শিন।

২০১২ সালেও শিন শিন একটি শাবকের জন্ম দিয়েছিল। যা ওই চিড়িয়াখানার ইতিহাসে পান্ডাশাবক জন্মের প্রথম ঘটনা। তবে মাত্র ছয় দিনের মাথায় ওই শাবক মারা যায়। এবার একসঙ্গে দুটি শাবকের জন্ম দিলো শিন শিন।