মহামারি রোধে ভ্যাকসিনের গুরুত্বের ওপর আস্থা রাখুন : ডব্লিউএইচও

নভেল করোনাভাইরাসজনিত মহামারি প্রতিরোধে ভ্যাকসিন নিয়ে বিশ্বে কাজ এগিয়েছে অনেকদূর। এ প্রেক্ষাপটে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-ডব্লিউএইচওর একজন বিশেষজ্ঞ সতর্ক করে বলেছেন, জনগণের অবিশ্বাস মহামারি প্রতিরোধে সবচেয়ে কার্যকর চিকিৎসা ভ্যাকসিনকে অকেজো করার ঝুঁকি তৈরি করবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার টিকাদান বিভাগের পরিচালক ক্যাথেরিন ও’ব্রায়ান এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ফ্রিজার, রেফ্রিজারেটর কিংবা শেলফে থাকা টিকাগুলো মহামারি প্রতিরোধে কোনো কাজেই আসবে না। সংবাদমাধ্যম বাসস এ খবর জানিয়েছে।

মার্কিন ওষুধ কোম্পানি ফাইজার এবং এর জার্মান অংশীদার বায়োটেক গত সোমবার তাদের সম্ভাব্য টিকা করোনা প্রতিরোধে ৯০ শতাংশ কার্যকর বলে ঘোষণা দিয়েছে।

ও’ব্রায়ান এ ঘোষণাকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে বলেন, আরো কয়েকটি টিকার ফলাফলও খুব শিগগিরই জানা যাবে। তিনি বলেন, সম্পূর্ণ পরীক্ষা শেষে এক বা একাধিক টিকা করোনা প্রতিরোধে যথেষ্ট কার্যকর হলে, এটি হবে খুবই ভালো খবর।

কিন্তু ক্যাথেরিন ও’ব্রায়ান গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, ভ্যাকসিন নিয়ে ক্রমবর্ধমান দ্বিধা, ভুল তথ্য ও অবিশ্বাসের কারণে বৈজ্ঞানিক অগ্রগতি নিয়ে মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্যতা নষ্ট হবে।

ও’ব্রায়ান আরো বলেন, জনগণ ভ্যাকসিন গ্রহণে অনিচ্ছুক হলে মহামারি প্রতিরোধে বিশ্ব সফল হবে না। এ জন্য জনগণের আস্থা বাড়াতে আরো কিছু করা প্রয়োজন বলে তিনি উল্লেখ করেন।

এদিকে টিকা প্রসঙ্গে ক্যাথেরিন ও’ব্রায়ান বলেন, একটি নিরাপদ ও কার্যকর টিকা তৈরি এভারেস্টে বেইজ ক্যাম্প স্থাপন করার মতো। কিন্তু মূলত টিকার কার্যকারিতা এভারেস্টের চূড়ায় ওঠার মতো।