মাস্ক না পরলে জরিমানার পাশাপাশি জেলও হতে পারে : মন্ত্রিপরিষদ সচিব

আসন্ন শীতে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় জনসাধারণকে মাস্ক পরা বাধ্য করতে কঠোর অবস্থান নিতে যাচ্ছে সরকার। এ নিয়ে আজ সোমবারের মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। মাস্ক না পরলে শাস্তি হিসেবে বড় অঙ্কের টাকা জরিমানার পাশাপাশি জেল দেওয়ার কথাও ভাবছে সরকার।

এমনটিই জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব ড. খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে অনলাইনে যুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্ত্রিসভার এ বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব ড. খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, আজকের মন্ত্রিসভার বৈঠকে করোনার সেকেন্ড ওয়েভ মোকাবিলা ও ভ্যাকসিন সংগ্রহের সর্বশেষ অগ্রগতি সম্পর্কে মন্ত্রিসভাকে অবহিত করা হয়েছে। মাস্ক না পরলে সর্বোচ্চ জরিমানা করার নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে মন্ত্রিসভা থেকে।

জরিমানার পরিমাণ সম্পর্কে জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, পরিমাণ কত সেটা নিশ্চিত না করলেও সর্বোচ্চ জরিমানা করতে প্রশাসনকে নির্দেশনা দেওয়া হবে। এভাবে এক সপ্তাহ দেখার পর জেল দেওয়ার মতো কঠোর অবস্থানে যেতে পারে সরকার।

সচিব বলেন, এ ছাড়া আজকের মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নীতিমালা’র খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। মানুষের নিরাপদ জীবন নিশ্চিত করার লক্ষ্য নিয়ে এই নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে। এ নীতিমালার অধীনে আলাদা ইউনিট গঠন করার প্রস্তাব করা হয়েছে। ডিআইজি পদমর্যাদার একজন কর্মকর্তা এ ইউনিটের দায়িত্বে থাকবেন। তথ্য দেওয়ার নামে প্রতারণা করলে দণ্ড বিধিমালা অনুযায়ী শাস্তি থাকবে। এটা দ্রুত বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন।