‘ম্যাচটি আমাদের জেতা উচিত ছিল’ : তামিম

প্রথম ম্যাচে বাজে হার। দ্বিতীয় ম্যাচে ব্যবধান কমলেও হারের বৃত্তেই থেকে গেল বাংলাদেশ। নিউজিল্যান্ড সফরে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে আশা জাগিয়েও পারেনি লাল-সবুজের দল। 

অবশ্য ব্যাটসম্যানরা লড়াইয়ের পুঁজি এনে দিয়েছিল বাংলাদেশকে। বোলাররা শুরুতে সাফল্য এনেও দিয়েছিল। কিন্তু ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারেনি বলেই ব্যর্থতা।     

এই ম্যাচে হারের হতাশায় বাংলাদেশ অধিনায়ক তামিম ইকবাল বলেন, ‘আমাদের এই ম্যাচটি জেতা উচিত ছিল। বোলাররা সুযোগ তৈরি করেছিল, কিন্তু আমরা তা কাজে লাগাতে পারিনি। এমন পরিস্থিতিতে আমরা কালেভদ্রে ম্যাচ জিতি। তাই যখন এমন পরিস্থিতি আসে, তখন আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যে আমরা প্রতিটি কাজ শতভাগ করি।’

বাংলাদেশ অধিনায়ক আরও বলেন, ‘আমরা এখানে নিজেদের ক্রিকেটের উন্নতি নয়, ম্যাচ জিততে এসেছি। পরে সুযোগ আসলে তা ভালোভাবে কাজে লাগাতে হবে। ওয়েলিংটনে আমাদের ইতিবাচক ক্রিকেট খেলতে হবে।’

ম্যাচে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ছয় উইকেট হারিয়ে ২৭১ রান করে বাংলাদেশ। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৮ রান এসেছে তামিমের ব্যাট থেকে। ৭৩ রানে অপরাজিত ছিলেন মিঠুন।

বাংলাদেশের ক্যাচ মিসের মহড়ায় সুযোগ পেয়ে নিজের লক্ষ্যে ভালোভাবেই পৌঁছে যান কিউই অধিনায়ক টম ল্যাথাম। তুলে নেন ব্যক্তিগত সেঞ্চুরি। অধিনায়কের ব্যাটে ভর করে ১০ বল বাকি থাকতেই পাঁচ উইকেটে জয় পায় নিউজিল্যান্ড। ১০১ বলে সেঞ্চুরি স্পর্শ করা ল্যাথাম শেষ পর্যন্ত ১১০ রানে অপরাজিত থাকেন।

এই জয়ের সুবাদে এক ম্যাচ হাতে রেখেই ২-০ ব্যবধানে সিরিজ নিশ্চিত করল নিউজিল্যান্ড। সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচ হবে আগামী ২৬ মার্চ।

দ্বিতীয় ওয়ানডের সংক্ষিপ্ত স্কোর :

বাংলাদেশ : ৫০ ওভারে ২৭১/৬ (তামিম ৭৮, সৌম্য ৩২,  লিটন ০, মিঠুন ৭৩*, মুশফিক ৩৪, মাহমুদউল্লাহ ১৬, মেহেদি ৭, সাইফউদ্দিন ৭*; জেমিসন ১০-২-৩৬-১, বোল্ট ১০-০-৪৯-১, হেনরি ১০-৩-৪৮-১, স্যান্টনার ১০-০-৫১-২, নিশাম ৯-০-৭৩-০)।

নিউজিল্যান্ড : ৪৮.২ ওভারে ২৭৫/৫ (গাপটিল ২০, নিকোলস ১৩, কনওয়ে ৭২, উইল ইয়ং ১, ল্যাথাম ১১০*, নিশাম ৩০, মিচেল ১২*; তাসকিন ১০-০-৬৭-০, সাইফউদ্দিন ৭.২-০-৪৩-০, মুস্তাফিজ ৮.৩-০-৬২-২, মেহেদি ১০-০-৪২-২, মিঠুন ২-০-১২-০, মিরাজ ১০-১-৩৮-০)।

ফল : পাঁচ উইকেটে জয়ী নিউজিল্যান্ড।