রাজশাহীতে পর্নোগ্রাফি মামলায় প্রকৌশলীর ৭ বছরের কারাদণ্ড

এক ছাত্রীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে অশ্লীল ছবি ও ভিডিও ধারণ করে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকির অপরাধে পর্নোগ্রাফি মামলায় এক প্রকৌশলীকে সাত বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) দুপুরে রাজশাহী চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক শাহ্ মোহাম্মাদ জাকির হাসান এ রায় প্রদান করেন।

ওই ছাত্রী ঢাকার আহসানুল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করতেন। তার বাড়ি রাজশাহী মহানগরীর বোয়ালিয়া থানা এলাকায়। 

সাজাপ্রাপ্ত আসামি হলেন, মহানগরীর মতিহার থানার অক্ট্রোয় মোড় এলাকার মৃত প্রবীর কুমারের ছেলে পার্থ প্রতীম ঘোষ (৩০)। তিনিও ঢাকার আহসানুল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার সায়েন্সে পাস করেছেন। তিনি একটি মোবাইল কোম্পানিতে প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

আদালত সূত্র জানায়, ২০১৫ সালে ওই ছাত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলেন প্রতীম। এরপর তার নগ্ন ছবি ও ভিডিও ধারণ করেন। সেই ছবি দেখিয়ে মেয়েটির বাবার কাছ থেকে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। টাকা দিতে অস্বীকার করায় ওই ভিডিও এবং ছবি ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেন প্রতীম। 

ওই বছরের ২২ ডিসেম্বর মহানগরীর বোয়ালিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন ছাত্রী। ওই মামলায় সাক্ষ্য-প্রমাণ শেষে বৃহস্পতিবার বিচারক এ রায় দেন।

মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান। আসামিপক্ষে ছিলেন মোহন কুমার সাহা।