শেষ ম্যাচে হোয়াইটওয়াশ এড়াতে চায় বাংলাদেশ

ওয়ানডের পর নিউজিল্যান্ডের কাছে টি-টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর লক্ষ্য নিয়ে আগামীকাল মাঠে নামছে সফরকারী বাংলাদেশ। অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে টি-টুয়েন্টি সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে জয়ের জন্য মুখিয়ে আছে টাইগাররা। সফরে শেষ টি-টোয়েন্টি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় দুপুর ১২টায়। বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি), গাজী টেলিভিশন ও টি-স্পোর্টস সরাসরি ম্যাচটি সম্প্রচার করবে।

ইতোমধ্যে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে বাংলাদেশ। টি-টোয়েন্টিতে প্রথম দুই ম্যাচ হেরে আরও একবার হোয়াইটওয়াশের মুখে বাংলাদেশ। তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে জয় দিয়ে অন্তত একটি সাফল্য নিয়ে সফর শেষ করতে চায় বাংলাদেশ। যাতে অন্তত হোয়াইটওয়াশের লজ্জাও এড়ানো সম্ভব হয়।

একটি জয়, নিউজিল্যান্ডের মাটিতে জয়ের বন্ধ্যাত্ব ঘোচাবে বাংলাদেশের। নিউজিল্যান্ডের কাছে টানা ২৬ ম্যাচে হারের লজ্জা রয়েছে টাইগারদের। এর সঙ্গে যুৃক্ত হয়েছে এই সফরের পাঁচটি ম্যাচও। অর্থাৎ নিউজিল্যান্ডের মাটিতে সব মিলিয়ে ৩১টি ম্যাচই হারলো বাংলাদেশ (১৬টি ওয়ানডে, ৯টি টেস্ট ও ৬টি টি-টোয়েন্টি)।

দেশ ছাড়ার আগে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে প্রথম জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী ছিলো বাংলাদেশ। কিন্তু এখনো লক্ষ্য পূরণ হয়নি টাইগারদের। সিরিজের প্রথম ওয়ানডে ৮ উইকেটে হারে তারা। ঐ ম্যাচে ১৩১ রানে অলআউট হয়েছিলো বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ম্যাচে ব্যাটিং ভালো হলেও পাঁচ উইকেটে হেরে সিরিজ হাতছাড়া করে টাইগাররা। তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে আবারো ব্যাটসম্যানরা ব্যর্থতার পরিচয় দেয়। ১৬৪ রানের বড় ব্যবধানে হারের ঢেঁকুর তুলে টাইগাররা।

এরপর প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলতে নেমে নিজের ভাগ্য পরিবর্তন করতে পারেনি বাংলাদেশ। ৬৬ রানে ম্যাচ হারে তারা। আর দ্বিতীয় ম্যাচে বৃষ্টি কারণে টার্গেট নিয়ে হওয়া নাটক বেশ ভুগিয়েছে বাংলাদেশ।

দ্বিতীয় ম্যাচ থেকে শুধুমাত্র ইতিবাচক দিক হলো সৌম্য সরকারের ব্যাটিং। সৌম্যর বিধ্বংসী ব্যাটিং ১০ ওভার পর্যন্ত বাংলাদেশকে ম্যাচে রেখেছিলো। কিন্তু তার আউটের পর মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যানরা ব্যর্থতার পরিচয় দেন। ২৭ বলে ৫১ রান করেন সৌম্য। শেষ পর্যন্ত বৃষ্টি আইনে ২৮ রানে ম্যাচ হারে বাংলাদেশ।

আগের ম্যাচে সৌম্যর বিধ্বংসী ব্যাটিং তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে হারাতে দলের অন্য খেলোয়াড়দের আত্মবিশ্বাস দিচ্ছে বলে মনে করেন বাংলাদেশ কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো।

ডোমিঙ্গো বলেন, ‘১০ ওভার শেষে একশ রান, আমি মনে করি খুবই ভালো শুরু। আগের ম্যাচে আমাদের উন্নতি নিয়ে আমরা খুশি। অবশ্যই ভালোভাবে শেষ করতে পারিনি। কিন্তু আমাদের জন্য কিছু ইতিবাচক দিক আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সফরের জন্য নিউজিল্যান্ড কঠিন জায়গা এবং এখানে আমাদের রেকর্ড মোটেও ভালো নয়। আমরা কি করতে পারি তার প্রমাণ দেখিয়েছি। কিন্তু আমরা ধারাবাহিক নই। আশা করি আমরা পরের ম্যাচে পুরো ৪০ ওভার ধারাবাহিক হতে পারবো। আপনার যদি পাঁচটি ওভার খারাপ হয়, তবে তারা আপনার উপর চাপ সৃষ্টি করবে এবং আপনাকে লড়াই থেকে ছিটকে দিবে। আশা করি, আমরা ভালো পারফরম্যান্স করতে পারবো।’

এখন পর্যন্ত ৯৮টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। এরমধ্যে মাত্র ৩২টিতে জিতেছে তারা এবং ৬৪ ম্যাচ হেরেছে। বাকী দু’ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়েছে। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৯ ম্যাচে এখনো জয়হীন রয়েছে টাইগাররা। আগামীকাল হারলে নিউজিল্যান্ডের কাছে হারের ব্যবধানে ডাবল ফিগারে পৌঁছে যাবে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বলেন, ‘টি-টোয়েন্টি কিছু কিছু ম্যাচে ভালো শুরু করা যায়, কিছু কিছু ম্যাচে হয় না। কিন্তু ব্যাটিং-বোলিং দিয়ে ভালোভাবে ম্যাচ শেষ করতে হবে।’