সমুদ্রে ত্রাস সৃষ্টি করছে জলদস্যুরা, ভারতকে জানিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ

ঢাকা: প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার মধ্য দিয়ে প্রায় ৩ বছর আগে বাংলাদেশের সুন্দরবন এলাকা আনুষ্ঠানিকভাবে জলদস্যু ও বনদস্যুমুক্ত হয়েছিল।

সে সময় বেশির ভাগ জলদস্যু গ্রুপ আত্মসমর্পণ করায় স্বস্তি ফিরে এসেছিল। কিন্তু এরই মধ্যে আবারও বরিশাল উপকূলে শুরু হয়েছে নতুন উৎপাত।

তথ্যমতে, সুন্দরবনে আত্মসমর্পণ না করা কয়েকটি গ্রুপ সে সময় ভারতে পালিয়ে যায়। তারাই এখন বাংলাদেশে ঢুকে দস্যুতা করছে। শুধু তাই নয়, তাদের সঙ্গে আবার যোগ হয়েছে ভারতীয় জলদস্যু গ্রুপও।

সুন্দরবন উপকূল থেকে শুরু করে চট্টগ্রাম পর্যন্ত তাদের দৌরাত্ম্য। অপহরণ, হত্যাকাণ্ড ও মাছ নিয়ে দ্রুত বাংলাদেশের সমুদ্রসীমা পার হয়ে যাওয়ায় তাদের ধরতে হিমশিম খাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

জেলেরা বলছেন, পাথরঘাটায় র‌্যাবের ক্যাম্প স্থাপন এবং জেলেদের মোবাইল নেটয়ার্কের আওতায় আনা এবং র‌্যাবের পাশাপাশি অন্যান্য বাহিনীর আরও তৎপরতা কমাতে পারে জলদস্যুতা।

র‌্যাবের মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলছেন, আমরা ভারতের সাথে যৌথভাবে জলদস্যুদের মোকাবিলায় কাজ করছি।

আশা করছি, এ ধরনের ঘটনা আর ঘটেব না। এরপরও যদি কেউ এমন ঘটনা ঘটায় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলছেন, অভিযান অব্যাহত রাখার পাশাপাশি হেলিকপ্টার টহলও দেওয়া হচ্ছে।

একইসঙ্গে যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে ভারতকে জানিয়ে দেওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

প্রভাতনিউজ/এনজে