সাইফ অধিনায়ক, মাঠে নামছেন ইয়াসির, ইবাদত, খালেদ

আয়ারল্যান্ড উলভস ও বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের চারদিনের ম্যাচ শুক্রবার মাঠে গড়াবে। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে। চারদিনের ম্যাচ শেষে পাঁচটি একদিনের ও দুইটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে দুই দল।

বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের হয়ে মাঠে নামতে যাচ্ছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে স্কোয়াডে থাকা চার ক্রিকেটার। সাইফ হাসানকে দলটির অধিনায়ক করা হয়েছে। সঙ্গে রয়েছেন ইয়াসির আলী রাব্বি, ইবাদত হোসেন ও সৈয়দ খালেদ আহমেদ। 

যুব বিশ্বকাপজয়ী ও ঘরোয়া ক্রিকেটের প্রতিশ্রুতিশীল একঝাঁক ক্রিকেটার নিয়ে গত অক্টোবরে বিসিবির এবারের হাই পারফরম্যান্স দলের যাত্রা শুরু হয়। মিরপুরে তারা প্রধান কোচ টবি র্যাঁডফোর্ডের অধীনে দুই সপ্তাহ ক্যাম্প করেছিল। এছাড়া আকবর, ইমনরা বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে অংশ নিয়েছিলেন। দীর্ঘ অপেক্ষার পর পুরো দল ম্যাচ খেলার সুযোগ পাচ্ছে।

এ সিরিজে তারা পাচ্ছে না র‌্যাডফোর্ডকে। শারীরিক অসুস্থতায় ইংলিশ কোচ আসেননি। তার পরিবর্তে সাইফ, ইয়াসিরদের দায়িত্ব পালন করছেন চাম্বাকা রামানায়েকে। গত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে চট্টগ্রামে নিয়মিত অনুশীলন ও ম্যাচ খেলছে দলটি। অনূর্ধ্ব-১৯ দলের সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে নিজেদের ঝালিয়ে নিয়েছেন তৌহিদ হৃদয়রা। এবার মূল মঞ্চে মাঠে নামার পালা।

১৮ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে পা রেখে তিনদিনের কোয়ারেন্টাইন শেষে গত মঙ্গলবার অনুশীলনে নামে অতিথি দল। মাঠে ফিরে দারুণ খুশি অতিথি দলের অধিনায়ক হ্যারি টেকটর। তিনি ক্রিকেটইউরোপকে বলেন, ‘আইসোলেশন শেষে মাঠে ফিরে দারুণ লাগছে। ব্যাটসম্যানরা নেটে ভালো সময় কাটিয়েছে।আমরা স্বল্প সময় পেয়েছি অনুশীলনের। এজন্য প্রতিটি মিনিটে মনোযোগ ধরে রাখছি।’

আইরিশ অধিনায়ক মনে করছেন, চারদিনের ম্যাচে তাদের মূল চ্যালেঞ্জ হবে স্পিন আক্রমণ সামলানো। তার ভাষ্য, ‘চারদিনের ম্যাচে আমাদের মূল চ্যালেঞ্জ হবে স্পিনে। আমরা স্পিনারদের বিপক্ষে কতটা ভালো খেলতে পারি সেটা দেখতে হবে। তারা (বাংলাদেশ) যে আক্রমণ নিয়ে আসবে সেটা অবশ্যই দ্রুত মানিয়ে নিতে হবে।’

অন্যদিকে জাতীয় দলের ওপেনার সাইফ হাসান ম্যাচ খেলার সুযোগটি ভালোভাবে কাজে লাগাতে চান। তার ভাষ্য,‘আমাদের জন্য অনেক বড় সুযোগ। আশা করি ভালো কিছু হবে। এখানে এইচপির যারা আছে, তাদের জন্য অনেক বড় সুযোগ। যারা জাতীয় দল থেকে এসেছি, তাদের জন্যও ভালো সুযোগ পারফর্ম করার। করোনার মধ্যে সবাই সবাইকে সাহায্য করছে। আশা করি খুব ভালো একটা সিরিজ হবে।

দুই দলেই রয়েছে জাতীয় দলে খেলা একাধিক ক্রিকেটার। ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে সংযুক্ত আরব আমিরাতে স্বাগতিক দল ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে খেলা ৮ ক্রিকেটার (মার্ক অ্যাডায়ার, কুর্টিস ক্যাম্ফার,গ্যারেথ ডেলানি, জশ লিটল, জেমস ম্যাককুলাম, নেইল রক, হ্যারি টেক্টর, লরকান টাকার)রয়েছেন উলভস দলে।