সু চির বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহণের নতুন অভিযোগ

মিয়ানমারের ক্ষমতাচ্যুত নেতা অং সান সু চির বিরুদ্ধে আবারও ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ করা হয়েছে। দেশটির সেনাশাসকদের সঙ্গে সম্পৃক্ত এক নির্মাণ ব্যবসায়ী দাবি করেছেন, ব্যবসায়িক সুবিধার জন্য তিনি সু চিকে পাঁচ লাখ মার্কিন ডলার ঘুষ হিসেবে দিয়েছিলেন।

গত পহেলা ফেব্রুয়ারি সু চির সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত ও তাকে গৃহবন্দি করে সামরিক বাহিনী। এরপর সু চির বিরুদ্ধে আমদানি-রপ্তানি আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে মামলা হয়। এ ঘটনার পর ছয় লাখ ডলার ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে আরেকটি মামলা হয়। সু চির আইনজীবী এই মামলা দুটিকে ভিত্তিহীন অভিযোগে দায়ের করা বলে দাবি করেছেন।

বুধবার সু চির বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার করেন মং ওয়াইক নামের এক ব্যবসায়ী। মাদক পাচারের অভিযোগে কারাভোগও করেছেন এই ব্যবসায়ী।

এক বিবৃতিতে তিনি দাবি করেছেন, তার ব্যবসার সুবিধার জন্য তিনি সু চির সরকারের মন্ত্রীদের ঘুষ দিয়েছিলেন। ২০১৮ সালে সু চির মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত একটি দাতব্য প্রতিষ্ঠানকে এক লাখ ৫০ হাজার ডলার দিয়েছিলেন। এছাড়া দেড় লাখ ডলার ২০১৯ সালে, ৫০ হাজার ডলার গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে এবং ২ লাখ ৫০ হাজার ডলার এপ্রিলে দিয়েছিলেন।

সেনা নিয়ন্ত্রিত টেলিভিশন চ্যানেলে বলা হয়েছে, ‘অং সান সু চি দুর্নীতি করেছেন এবং কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন আইনে মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।’