স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলায় আসামির ফাঁসি

বরিশালে তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ শেষে হত্যার মামলায় একমাত্র আসামি আবুল কালাম আজাদ কালুকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

আজ দুপুর ১২টায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোঃ আবু শামীম আজাদ আসামির উপস্থিতিতে এই রায় দেন।

আভাসের আইন সহায়তা কেন্দ্রের দ্বারা পরিচালিত মামলার অ্যাডভোকেট মোঃ মোখলেচুর রহমান বলেন, ২০১৮ সালের ১১ মার্চ নগরীর পূর্ব গণপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যলয়ের ছাত্রী সীমা আক্তার স্কুলের টয়লেট বন্ধ থাকায় পাশের বাড়িতে যায়। ওই সময় ট্রাকের হেল্পার আবুল কালাম আজাদ কালু বাড়িতে একা থাকার সুযোগে মীমকে ধর্ষণ শেষে হত্যা করে লাশ বস্তাবন্দি করে পাশের বাড়ির কবরস্থানে রেখে আসে।

 হত্যার দুদিন পর ১৩ মার্চ দুর্গন্ধ বের হলে থানা পুলিশে খবর দেয়া হয়। ওদিন বিমানবন্দর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন সীমার মা মাহমুদা আক্তার। পুলিশ ওই বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর কালুর বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়।

২০ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আজকের এই রায় প্রদান করেন আদালত। আদালতে উপস্থিত সীমা আক্তারের মা-বাবা বলেন, তারা ফাঁসির রায়ে সন্তুষ্ঠ। তবে এই ফাঁসির রায় কার্যকর হোক এটা তারা দেখতে চান।

আর রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ফয়জুল হক ফয়েজ বলেন, রায়ে রাষ্ট্রপক্ষ খুশি।