হবিগঞ্জে পুলিশ-বিএনপি দফায় দফায় সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

হবিগঞ্জ শহরের শায়েস্তানগরে পুলিশ ও বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে পুলিশসহ অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে। 

আহতদের হবিগঞ্জ জেলা সদর আধুনিক হাসপাতালসহ স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ৮ জনকে আটক করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ১৩২ রাউন্ড বুলেট ও ২১ রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে।বিএনপি নেতাকর্মীরা জানান, সারাদেশে নিরীহ মানুষ হত্যার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে দুপুর শহরের শায়েস্তানগর এলাকার বিএনপি কার্যালয়ে ছাত্রদল, যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করছিলেন। এক পর্যায়ে জেলা কার্যালয় থেকে মিছিল নিয়ে শায়েস্তানগর পয়েন্টে গেলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে কোনো কারণ ছাড়াই পুলিশ তাদের ওপর হামলা চালায়। এতে বিএনপির অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়। গুলিবিদ্ধ হয় বেশ কয়েকজন। 

পুলিশ জানিয়েছে, কোন ধরনের অনুমতি ছাড়াই বিএনপি নেতাকর্মীরা প্রধান সড়কে যান চলাচল ব্যাহত করে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছিল। এসময় তাদের বাধা দিলে তারা কারণ ছাড়াই পুলিশের উপর হামলা চালায়। এক পর্যায়ে রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। এসময় হামলায় পুলিশের অন্তত ৮ সদস্য আহত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে।

জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রুবেল আহমেদ চৌধুরী জানান, তারা শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি পালনকালে পুলিশ হামলা করে। এতে আমিসহ আমার দলের শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে। উল্লেখযোগ্যদের মাঝে রয়েছেন জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জহিরুল হক শরীফ, জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আল আমিন তালুকদার, সাইফুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ রাজিব আহমেদ রিংগন, যুবদল নেতা রিয়াজুল ইসলাম, জোবায়ের আহমেদ, জেলা ছাত্রদল নেতা জাহেদুল আলম রিয়াদ, অলি, ইমন আহমেদ ও সাইফুল ইসলাম রকি।

তিনি আরও জানান, ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ সাবেক মেয়র ও বিএনপির কেন্দ্রীয় সমবায়বিষয়ক সম্পাদক জি কে গউছের ভাই জি কে গফ্ফার, ছেলে মাজহারুল কিবরিয়া প্রীতম ও জিকে গফ্ফারের ছেলে ফয়েজকে আটক করেছে।

হবিগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুক আলী জানান, বিএনপি নেতাকর্মীরা বিনা অনুমতিতে বিক্ষোভ কর্মসূচির নামে বিশৃঙ্খলতা সৃষ্টি করে। এক পর্যায়ে তারা পুলিশের উপর হামলা শুরু করে। এতে পুলিশের এসআই আব্দুর রহিম, এসআই জুয়েল সরকার, এসআই হারুন ও এসআই সোহেল দেবসহ ৮জন আহত হয়েছে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ১৩২ রাউন্ড বুলেট ও ২১ রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে। ঘটনাস্থল থেকে ৮ জনকে আটক করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।