হেফাজত-জামায়াত-বিএনপি এক ও অভিন্ন : হানিফ

হানিফ

হেফাজত, জামায়াত ও বিএনপি এরা এক এবং অভিন্ন। হেফাজত হলো জামায়াত-বিএনপির বি-টিম। এরা প্রত্যেকে স্বাধীনতাবিরোধী বলে উল্লেখ করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ মাহবুব উল আলম হানিফ ।’

হানিফ বলেন,  ‘আজকে বিএনপি ও জামায়াত ঐক্যবদ্ধ হয়ে তাদের প্রশ্রয় দিচ্ছে। আর এজন্য কিন্তু হেফাজত এই আস্ফালন দেখানোর সুযোগ পেয়েছে।’ 

আজ শনিবার ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে মেহেরপুরের মুজিবনগর স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানোর পর সাংবাদিকদের এ কথা বলেন মাহবুব উল আলম হানিফ।

মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, ‘২০১৩ সালে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করে যেভাবে মাজা ভেঙে দেওয়া হয়েছে। এই ধর্মব্যবসায়ী, এবং যারা এ দেশের রাষ্ট্রীয় সম্পদ ধ্বংস করে এদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায় তাদের আইনের আওতায় এনে বিষদাঁত উপড়ে ফেলতে হবে। এরপর কণ্টকমুক্ত করে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাব।’ 

হেফাজতে ইসলামের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে হানিফ বলেন, ‘আজকে হেফাজতের নামে যারা আছে, তারা বাংলাদেশের সংবিধানকে মানতে চায় না। তারা জাতীয় সংগীত গাইতে চায় না। জাতীয় পতাকাকে তারা সম্মান করতে চায় না। এরা কারা? যারা স্বাধীন দেশের নাগরিক, যারা স্বাধীনতাকে বিশ্বাস করে তারা তো এগুলো নিয়ম মানতে বাধ্য। একমাত্র যারা স্বাধীনতাবিরোধী, যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে এখনো মনে-প্রাণে ধারণ করতে পারেনি, তারাই শুধু এই সংবিধানকে মানতে চায় না। এই অপশক্তি বিএনপির নেতৃত্বে আজকে শক্ত অবস্থায় দানা বেধেছে।’

আরও পড়ুন…চারশ টাকার চাকুরে জিয়ার বিএনপি ইতিহাসকে অস্বীকার করতে চায় : তথ্যমন্ত্রী

এই আগে মুজিবনগর স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানোর পর মুজিবনগরে নির্মিত শেখ হাসিনা মঞ্চে দাঁড়িয়ে মাহবুব উল আলম হানিফ জাতীয় পতাকা এবং জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন দলীয় পতাকা উত্তোলন করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, জেলা প্রশাসক মুনসুর আলম খান এবং পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলী।