৪৮ ঘণ্টা পর মুক্ত বাতাসে সৌম্য-তাসকিনরা

গত বুধবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে পা রাখে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। ক্রাইস্টচার্চে পৌঁছে প্রথম দুদিন একেবারে রুমবন্দি ছিলেন ক্রিকেটারেরা। এমনকি একজনের সঙ্গে আরেকজনের দেখা করাও মানা ছিল। অবশেষে ৪৮ ঘণ্টা পর এই মুক্ত বাতাসে নামার সুযোগ পেলেন তাঁরা। সফরে গিয়ে আজ শুক্রবার প্রথমবারের মতো হোটেল রুমের বাইরে বের হওয়ার সুযোগ পেয়েছেন ক্রিকেটারেরা।

নিউজিল্যান্ড সফরে তিনটি করে টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। আগামী ২০ মার্চ থেকে শুরু হয়ে যা চলবে ১ এপ্রিল পর্যন্ত। এই ছোট সূচির জন্য বাংলাদেশকে থাকতে হচ্ছে প্রায় দেড় মাসের মতো। নভেল করোনাভাইরাসের কারণে এই কঠিন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।

ক্রাইস্টচার্চে বাংলাদেশ দলের বর্তমান ঠিকানা ‘শ্যাডো বাই পার্ক হোটেল’। প্রথম দুদিন ক্রিকেটারেরা যে যাঁর রুমেই বন্দি ছিলেন। করোনার পরীক্ষা করে সবার নেগেটিভ আসায় আজ থেকে ৩০-৪০ মিনিট করে হাঁটার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। দেখা করতে পেরেছেন একে অন্যের সঙ্গে। যদিও দুই মিটার করে দূরত্ব মানতে হয়েছে। পুরোপুরি মুক্তভাবে চলাফেরা করতে অপেক্ষা করতে হবে আরও ১২ দিন।

আগামী ২০ মার্চ থেকে ওয়ানডে সিরিজ দিয়ে শুরু হবে বাংলাদেশ বনাম নিউজিল্যান্ডের লড়াই। সিরিজের পরের দুই ওয়ানডে হবে ২৩ ও ২৬ মার্চ। কয়েকদিন আগে নিউজিল্যান্ড সফরের সূচিতে কিছুটা বদল এনেছিল স্বাগতিক ক্রিকেট বোর্ড। তবে সূচি বদলালেও আগের ভেন্যুতেই হবে খেলা। সিরিজের প্রথম ওয়ানডে হবে ডানেডিনে, দ্বিতীয়টি হবে ক্রাইস্টচার্চে আর শেষটি হবে ওয়েলিংটনে।

এই ক্রাইস্টচার্চেই সবশেষ নিউজিল্যান্ড সফরে খেলার কথা ছিল বাংলাদেশের। ওই টেস্টের আগে ক্রাইস্টচার্চের একটি মসজিদে হামলা হলে টেস্ট সিরিজের মাঝপথে দেশে ফিরে আসে বাংলাদেশ দল।

আসন্ন সফরে আগামী ২৮ মার্চ থেকে শুরু হবে টি-টোয়েন্টি সিরিজ। সিরিজের পরের দুটি টি-টোয়েন্টি হবে ৩০ মার্চ ও ১ এপ্রিল। প্রথম ম্যাচটি হবে হ্যামিল্টনে, দ্বিতীয়টি নেপিয়ারে, শেষটি অকল্যান্ডে।